শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » আহলান সাহলান-মাহে রমজান : মুহাম্মদ রুহুলআমীন নগরী

আহলান সাহলান-মাহে রমজান : মুহাম্মদ রুহুলআমীন নগরী

QRNTITLE

romjan মুহাম্মদ রুহুলআমীন নগরী : রমজান হিজরী সনের নবম মাস । নানা বৈশিষ্ট্য ফযিলত, তাৎপর্য ও শিক্ষা নিয়ে প্রতিবছর মোবারক এ মাসটির আগমনে মু’মিন জীবনে নেমে আসে সংযম ও পুণ্যের উৎসব। আল্লাহ পাক রমজান মাসের রোজা ফরয করেছেন এবং এর রাতগুলোতে আল্লাহর সামনে দন্ডায়মান হওয়াকে নফল ইবাদত রূপে সুনির্দিষ্ট করেছেন। হাদীস শরিফে উল্লেখ করা হয়েছে, যে ব্যক্তি এ রাতে আল্লাহর রেজামন্দি, সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের উদ্দেশে কোন ওয়াজিব, সুন্নাত বা নফল আদায় করবে, তাকে এর জন্য অন্যান্য সময়ের ফরয ইবাদততুল্য সওয়াব প্রদান করা হবে। আর যে ব্যক্তি এ মাসে কোন ফরয আদায় করবে, সে অন্যান্য সময়ের সত্তরটি ফরয ইবাদতের সমান সওয়াব লাভ করবে।
‘সাওম’ শব্দটি আরবী। সাওম বা সিয়াম শব্দের অর্থ বিরত থাকা। শরীয়তের পরিভাষায় সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পযন্ত নিয়্যত সহকারে পানাহার এবং যৌনাচার থেকে বিরত থাকাকে ‘সাওম’ বা রোজা বলা হয়। এ সম্পর্কে পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হচ্ছে- ‘হে ঈমানদারগণ! তোমাদের উপর রোজা ফরয করা হয়েছে যেরুপ ফরয করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তী লোকদের উপর, যেন তোমরা পরহেযগারী অর্জন করতে পার’। ( সূরা বাকারা)।
বস্তুত রোযা রাখার নিয়ম সর্বযুগেই প্রচলিত ছিল। পৃথিবীর প্রথম মানব হযরত আদম (আ) থেকে শুরু করে আখেরী নবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পর্যন্ত নবী রাসূলগন সকলেই সিয়াম পালন করেছেন। আল্লামা ইমাদুদ্দীন ইবনে কাসীর (র.) বলেন, ইসলামের প্রাথমিক যুগে তিনদিন রোযা রাখার বিধান ছিল। পরে রমযানের রোজা ফরয হলে তা রহিত হয়ে যায়।
পৃথিবীর সব ধর্মমতেই কোনো না কোনো রকমের উপবাস পালনের নিয়ম রয়েছে। পুরাকালে কেলট রোমান, অ্যাসিরীয় ও ব্যাবিলনীয়দের মধ্যে ‘রোজার’ ব্যবস্থা প্রচলিত ছিল। ইহুদী খ্রিষ্টান, জরথুস্ত্র ও কনফুসিয়াস অনুসারী, বৌদ্ধ ও হিন্দু ধর্মেও উপবাস পালিত হয়।
রোজা এমন এক ইবাদাত যার মাধ্যমে বান্দা লাভ করে এক রূহানী তৃপ্তি, নতুন উদ্যম ও প্রেরণা। আত্ম ত্যাগে বলিয়ান হয়ে পরম প্রিয় মাওলার সান্নিধ্য পেতে আত্মবিশ্বাসে হয়ে উঠেন বলীয়ান। হাদীসে কুদসীতে আছে, আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন: রোজা আমার জন্য এবং আমি নিজেই এর পুরস্কার দান করবো।’অপরএক হাদীসে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, রোযাদার ব্যক্তি দু‘টি আনন্দ লাভ করবে। একটি আনন্দ হল ইফতারের মুর্হুতে আর অপরটি হবে তার প্রতিপালকের সাথে সাক্ষাতের মুহুর্তে।

আর মাত্র ২/১ দিন বাকি, মাস ব্যাপী সিয়াম সাধনার উদ্বোধনী দিবসের। সন্ধ্যায় প্রকৃতির বুকে পশ্চিম গগনে উত্থিত নব চন্দ্রকে বিশ্বের কোটি কোটি মুসলিমের ন্যায় বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগন স্বাগত জানিয়ে সমস্বরে বলবে ‘আল্লাহুম্মা আহিল্লাহু আলাইনা বিল আমনি ওয়াল ঈমানী ওয়াস সালামাতি ওয়াল ইসলামী রাব্বিওয়া রাব্বুকাল্লাহু’ পরন্ত বিকেলে এই দোয়া পড়ে তারাবীহর নামাজ আদায়ের জন্য কাতার বন্ধীহয়ে মুমিনগণ মাওলায়ে হাকিকির সামনে দন্ডায়মান হতে শুরু করবেন। কবির কন্ঠে রমজানের আগমনী বার্তা-
পবিত্র রমজান এসেছে আদেশে খোদার,
গ্রহণ কর ভক্তিভরা সালাম আমার।
স্বাগতম ধন্য মোরা দর্শনে তোমার,
মা‘বুদের কাছে বহু মর্যাদা তোমার।
তুহফা নিয়ে আসিয়াছ দয়াময় আল্লাহর,
যাহার বদলে হবে দিদার মৌলার।
রোজা হলো ইসলামের পঞ্চভিত্তির একটি। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং সাহাবায়ে কেরাম (রা.) রমজান মাসে ইবাদাতের জন্য বেশী মনোনিবেশ করতেন। রমজানের রোজা মুসলমানদের জন্য একটি বিশেষ গুরুত্বর্পুণ ইবাদাত। এসর্ম্পকে ইরশাদ হচ্ছে, রমজান মাস হলো মানুষের দিশারী এবং সৎপথের স্পষ্ট নির্দশন ও সত্যাসত্যের র্পাথক্যকারীরুপে কুরআন অবর্তীণ হয়েছে। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যারা এ মাস পাবে তারা যেন এ মাসে সিয়াম পালন করে। ( সূরা বাকারা-২: ১৮৬)
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, যখন রমজান মাস আসে আসমানের দরজাসমূহ খুলে দেয়া হয় এবং দোযখের দরজাসমূহ বন্ধ করা হয়। আর শয়তানকে শৃংখলিত করা হয়। অপর এক বর্ণনায় আছে, রহমতের দরজাসমূহ খুলে দেয়া হয় (বুখারী ও মুসলিম) উল্লেখিত হাদীসে আসমানের দরজা খোলা বলতে রহমত বর্ষণ করা জান্নাতের দরজা খোলা বলতে নেক কাজ করার তৌফিক প্রদান করা এবং জাহান্নামের দরজা বন্ধ করা বলতে রোজাদারদের আত্মাসমূহকে শয়তানের যাবতীয় প্ররোচনামুক্ত রাখার ব্যাপারে ইঙ্গিত করা হয়েছে। জান্নাতের দরজা খোলা বলতে ইঙ্গিত করা হয়েছে যে, মুমিনগণ সুখশান্তিতে এ মাস কাটাবে এবং আল্লাহ পাক রোযাদারদের মন ও ধন-দৌলত প্রশস্ত করে দিবেন, যাতে তারা দান সাদকার মাধ্যমে জান্নাতের পথ সুগম করতে পারে। জাহান্নামের দরজা বন্ধ করে দেয়া হবে বলে ইঙ্গিত করা হয়েছে যে, রোজাদারের নফসকে অশ্লীল ও বেহুদা কর্ম হতে এবং নফসে আম্মারার ধোঁকা থেকে রক্ষা করে যাতে জান্নাতে যাওয়ার পথ সুগম করতে পারে।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, জান্নাতের দরজাসমূহের মধ্যে একটা দরজা হলো ‘‘বাবুরাইয়ান’’) এই দরজা দিয়ে কিয়ামতের দিন রোজাদার ব্যতীত অন্য কেহ প্রবেশ করতে পারবে না। অতঃপর আহবান করা হবে কোথায় এ ব্যক্তি যে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য রোজা রাখতো। এ আহবান শুনে রোজাদার ব্যক্তি জান্নাতের এ দরজায় গিয়ে দাঁড়িয়ে যাবে এবং প্রবেশের পর ঐ দরজা বন্ধ করে দেয়া হবে। আর কেউ তাতে প্রবেশ করতে পারবে না। (বুখারী ১ ঃ ২৫৪ (৩)
এখানে রোজা ভেঙে যায় ও কাজা-কাফফারা ওয়াজিব হয় যে কারণে এমন কয়েকটি বিষয় হলো:
১. ইচ্ছাকৃত কিছু খেলে বা পান করলে
২. স্ত্রী সহবাস করলে
৩. কোনো বৈধ কাজ করার পর রোজা ভেঙে গেছে মনে করে ইচ্ছাকৃত খেলে।
রোজা ভেঙে যায় ও কাজা ওয়াজিব হয় যে কারণে-
১. কানে বা নাকে ওষুধ ঢুকালে।
২. ইচ্ছা করে মুখ ভরে বমি করলে অথবা অল্প বমি আসার পর তা গিলে ফেললে।
৩. কুলি করার সময় অনিচ্ছাকৃত গলার ভেতরে পানি চলে গেলে।
৪. কামভাবে কাউকে স্পর্শ করার পর বীর্যপাত হলে।
৫. খাদ্য না এমন বস্তুখেলে, যেমন : কাঠ, কয়লা, লোহা ইত্যাদি।
৬. ধূমপান করলে।
৭. আগরবাতি ইত্যাদির ধোঁয়া ইচ্ছা করে নাকে ঢুকালে।
৮. সময় আছে মনে করে সুবহে সাদিকের পর সেহেরি খেলে।
৯. ইফতারের সময় হয়ে গেছে মনে করে সময়ের আগেই ইফতার করে ফেললে।
১০. দাঁত দিয়ে বেশি পরিমাণ রক্ত বেরিয়ে তা ভেতরে চলে গেলে।
১১. জোর করে কেউ রোজাদারের গলার ভেতরে কিছু ঢুকিয়ে দিলে।
১২. হস্তমৈথুন দ্বারা বীর্যপাত ঘটালে।
১৩. মুখে পান রেখে ঘুমালে এবং সে অবস্থায় সেহেরির সময় চলে গেলে।
১৪. রোজার নিয়ত না করলে।
১৫. কানের ভেতরে তেল ঢুকালে।
১৬. এক দেশে রোজা শুরুহওয়ার পর অন্য দেশে চলে গেলে।

রমজান হলো তাক্বওয়া অর্জনের মাস। ভোর থেকে সন্ধ্যা র্পযন্ত যারা সকল প্রকার পানাহার পরিহার করে শরীয়ত সম্মত পন্থায় রোযা আদায় করবেন তাদের জন্য আল্লাহর নিকট রয়েছে বিশেষ পুরস্কার। আর যারা সৃষ্টিকর্তার এই বিধানকে অমান্য করবে তাদের জন্য রয়েছে কঠোর শাস্তি। আল্লাহপাক আমাদের সকলকে রমজানের পবিত্রতা রক্ষার তাওফিক দিন। আসসালাম মাহে রমজান।

লেখক : ০১৭১৬৪৬৮৮০০।
তারিখ ১৬-৬-২০১৫

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now