শীর্ষ শিরোনাম
Home » ধর্ম » ‘লাব্বায়েক আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক’

‘লাব্বায়েক আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক’

বেগম শরীফা আমীন:  আরাফাতের ময়দানে আজ আল্লাহর বিশ্বাসী বান্দারা সমবেত। দুনিয়ার প্রতিটিপ্রান্ত থেকে লাখ লাখ মানুষ আজ সেই ঐতিহাসিক প্রান্তরে এসে হাজির হয়েছেন। যে ময়দানে বহু সহস্র বছর পূর্বে তাদের আদি বাবা-মা দীর্ঘ বিরহের পর পুনরায় মিলিত হয়েছিলেন। জান্নাত থেকে ধূলির ধরায় হযরত আদম (আ.) বর্তমান শ্রীলংকায় আর হযরত হাওয়া (আ.) ইয়েমেনের এডেনে অবতীর্ণ হন। এরপর তারা যাত্রা শুরু করেন পৃথিবীর মূল কেন্দ্রের দিকে। শ্রীলংকা থেকে পশ্চিমে মক্কা-মিনা-মুজদালিফা ও আরাফাতের পথে। হযরত হাওয়া (আ.) চলতে থাকেন উত্তরে একই লক্ষ্য পানে। দেখা হয় তিনপাশ পর্বতে ঘেরা ৪০ বর্গমাইলেরও বেশি আয়তনের আরাফাত ময়দানে, জাবালে রহমতে। আরাফাত অর্থ মহাপরিচয়, পুনর্মিলন। ওখান থেকে তারা চলতে শুরু করেন মিনা ও মক্কার পথে। রাত্রিযাপন করেন মুজদালিফার খোলা প্রান্তরে। যেখানটায় এখন ‘আল-মাশআরুল হারাম’ মসজিদ। এরপর পার্থিব জীবনযাপন হয় মক্কা শরীফে। মৃত্যুর পর হযরত আদমের (আ.) কবর হয় এক মত অনুযায়ী কাবার প্রাঙ্গণে বা মাতাফে। অন্য মতে, মিনা মসজিদে খাইফের স্থানে। অপরদিকে মা হাওয়ার (আ.) সন্তানেরা মক্কার অদূরে তার নামে লোহিত সাগরতীরে নতুন শহর গড়ে তোলেন ‘জিদ্দা’ বা ‘জাদ্দা’ নামে। যার অর্থ দাদিমা। মৃত্যুর পর সেখানেই তাকে দাফন করা হয়।
বিশ্বের সকল দেশের নানাভাষা, নানাবর্ণ, নানা সংস্কৃতির কমবেশি ৪০ লাখ লোক সাধারণত হজের মৌসুমে ছুটে আসেন পবিত্র ভূমিতে। সারা বছর ওমরা মিলিয়ে তাদের সংখ্যা কোটির অংক ছাড়িয়ে যায়। সরকারী হিসাবে ২০/২৫ লাখ গণনায় থাকলেও সড়ক পথ, সমুদ্রপথ ও পদাতিক হজযাত্রী মিলিয়ে এ সংখ্যা হয়ে থাকে প্রায় দ্বিগুণ। বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়নিংড়ানো শ্রদ্ধা ভক্তি ও ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে গোটা আরাফাতে এখন নিমগাছের শীতল ছায়া বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের সুনাম ছড়িয়ে দিচ্ছে। এবার রাষ্ট্র ও সরকারের গুরুত্বপূর্ণ অনেক ব্যক্তিসহ লক্ষাধিক বাংলাদেশী আরাফার ময়দানে উপস্থিত।
অন্তত পাঁচ হাজার বছর আগে কুফুরি, শিরক ও কুসংস্কারে পরিপূর্ণ মানববিশ্বে তওহিদের নতুন আহ্বান নিয়ে এসেছিলেন হযরত ইবরাহিম (আ.) যিনি বিশ্ব মুসলিম জাতির স্থপতি, জনক ও নেতা। ইরাকের খালিলিয়ায় জন্মগ্রহণকারী এই নবী পৃথিবীর সকল জীবন্ত ও প্রচলিত ধর্মের মান্যবর উৎস-ব্যক্তিত্ব। ইহুদী, খ্রিস্টান এবং অন্যান্য ধর্মেও ‘আব্রাহাম’ ও ‘ব্রহ্মা’ এবং সংশ্লিষ্ট পরিভাষাগুলো ইবরাহিম শব্দেরই বিভিন্ন রূপ। তিনি ‘একত্ববাদ’ তথা ‘তওহীদের’ প্রবক্তা হওয়ায় অংশীবাদ, ত্রিত্ববাদ, পৌত্তলিক ও বহুত্ববাদী ধর্মগুলো তার আদর্শের উপর নেই। কেবল ‘ইসলাম’ অনুসারী ‘মুসলিম’ জাতিই ইবরাহিমী আদর্শের উপর প্রতিষ্ঠিত। পাঁচ হাজার বছর আগে আল্লাহর নির্দেশে হযরত ইবরাহিম (আ.) মক্কায় হজের বিধান জারি করেন। একত্ববাদের প্রবক্তা ও বিশ্বাসী মানবসম্প্রদায়ের জাতিরজনক হযরত ইবরাহিম (আ.) তার প্রিয়তমা স্ত্রী হযরত হাজেরা (আ.)-কে আল্লাহর নির্দেশে মক্কার মরু-কংকরময় পর্বত ঘেরা নিষ্ফলা বিজন ভূমিতে নবজাতক শিশুপুত্র ইসমাঈল (আ.)সহ রেখে চলে যান। এই নবী পরিবারের ধৈর্য্য, সবর, আত্মত্যাগ ও ঈমানী পরীক্ষা স্মৃতিকে ধারণ করেই রচিত পবিত্র হজের আমল। সেই কাবাগৃহ, সেই মাকামে ইবরাহিম, সেই যমজম, সেই কোরবানী, সেই সাফা-মারওয়া সায়ী, সেই জামারার কংকর নিক্ষেপ, মাথামু-ন ও এহরামের সাদা কাপড় সবই কিন্তু নবী ইব্রাহীমের (আ.) ঈমানী চেতনা ও খোদাপ্রেমেরই স্মারকচিহ্ন। হযরত ইসমাঈলের উত্তর পুরুষ আমাদের মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) বিশ্বনবী ও শ্রেষ্ঠনবী হিসেবে প্রণয়ন করে গেছেন চিরজীবন্ত, চিরঅমর, চির পবিত্র হজ। কিয়ামত পর্যন্তই এ হজ জারি থাকবে।
হাজার হাজার বছর ধরে মানুষ হজ পালন করে আসলেও মানবজাতির জন্য সর্বশেষ হেদায়েত পবিত্র কোরআন নাযিলের মধ্য দিয়ে বিশ্বের বুকে একমাত্র আল্লাহ মনোনীত দ্বীন বা জীবন ব্যবস্থারূপে ইসলামকেই নির্ধারণ করা হয়। মানব জাতির চিরকাক্সিক্ষত রাসূল, সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী, হযরত মুহাম্মদ (সা.), যিনি সকল নবীদের নবী। তাঁর উপরই কোরআন নাযিল হয়। এই মহান রাসূল তাঁর বিদায় হজের মাধ্যমে ঐতিহাসিক হজকে পূর্ণাঙ্গ ও চিরস্থায়ী রূপ প্রদান করেন। হযরত আদম ও ইবরাহীম (আ.)-এর সংশ্লিষ্ট আরো নবী-রাসূল এবং তাদের পরিজনদের ঈমানদীপ্ত ঘটনাবলী সংযুক্ত করে রচিত হয়েছে এই আলোময় মহান ইবাদত ‘হজ’।
আমাদের প্রিয়নবী (সা.) বলেছেন, পাঁচটি বিষয়ের ওপর ইসলাম প্রতিষ্ঠিত, আল্লাহ ও রাসূলের ওপর ঈমান, নামাজ, যাকাত, রোযা ও হজ। নবী করিম (সা.) বিদায় হজের শুরুতেই বলেছেন, মুসলিমরা, তোমরা আমার অনুসরণ কর যেভাবে আমাকে হজ করতে দেখ, সেভাবেই হজ কর। এদিন থেকেই পূর্ণাঙ্গ রূপ নেয় আজকের হজ। নবী করিম (সা.) আরো বলেছেন, হজ মানেই আরাফা। একটি নিখুঁত ও কবুল হজের বিনিময় জান্নাত ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না।
পূর্ব ও পশ্চিম থেকে লাখো মুসলমান এই দেড় হাজার বছর পরও প্রিয়নবী (সা.)-এর প্রেম-ভালোবাসা নিয়ে আজ সমবেত তার স্মৃতিবিজড়িত পূণ্যভূমিতে। একশ্রেণীর মূর্খ, বেঈমান ও হতভাগা নাস্তিক যতই নিন্দা করুক, শয়তান ও তার চেলারা যতই প্ররোচণা দিক বিশ্বাসী মানুষ তাদের মালিক ও স্রষ্টা মহান রাব্বুল আলামীনের ডাকে সাড়া দিয়ে ছুটে এসেছেন পৃথিবীর প্রাণকেন্দ্রে। আরাফাতের ময়দান আজ ঈমানদৃপ্ত কণ্ঠে মুখরিত, পুণ্যার্থী মুসলিমের পবিত্র পদভারে স্পন্দিত, আরব উপদ্বীপের হৃৎপি- হেজাজভূমি এখন জীবন্ত জাগ্রত। এ বিশ্বকাফেলায় বাংলাদেশের উপস্থিতি ও অংশগ্রহণ বড় সুখের, বড় গৌরবের।
লাব্বাইকা আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক-ধ্বনিতে আজ প্রকম্পিত হবে সমগ্র আরাফাত ময়দান। মানব জাতির আদি পিতা হজরত আদম আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও মা হাওয়া আলাইহি সালামের মিলনস্থল আরাফাত ময়দানে সমবেত বিশ্বের লাখ লাখ মুসলিম আজ বিনয় ও আত্মনিবেদনের সাথে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করে জীবনের সব গুনাহের জন্য ক্ষমা চাইবেন। তিনি তাঁর সব বান্দাকে ক্ষমা করে দেবেন। সমবেত সবার হজ কবুল করে নেবেন ইনশাআল্লাহ।
আজ পবিত্র হজ। সউদী আরবে আজ ৯ জিলহজ। শুক্রবার আরাফাত দিবস হওয়ায় আজ আকবরি হজ । মুসলিম জাতির সাপ্তাহিক শ্রেষ্ঠ দিন শুক্রবার আর হজের প্রধানতম দিন আরাফা একই সাথে মিলিত হওয়ায় ঐতিহ্য অনুযায়ী একে আকবরি হজ বলা হয়। যদিও পবিত্র কোরআনের বরাতে বিদায় হজে সকল হজকেই ‘হজে আকবর’ বলা হয়েছে। হাজিদের ‘উকুফে আরাফাহ’ বা আরাফাতের ময়দানে অবস্থানের দিন। টানা পাঁচ দিন হজের আরো অনেক করণীয় থাকলেও মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ৯ জিলহজ মক্কার অদূরে আরাফাতের ময়দানে অবস্থানের দিনকেই হজের দিন বলেছেন। এই ময়দানেই রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম লক্ষাধিক সাহাবি রাযিআল্লাহু আনহুম আজমাঈনকে সামনে রেখে ঐতিহাসিক বিদায় হজের ভাষণ দিয়েছিলেন। এ বছর ২০ লক্ষাধিক মুসল্লি পবিত্র হজ পালন করছেন বলে মনে করা হচ্ছে। ইবোলাপীড়িত এলাকা হওয়ার কারণে পশ্চিম আফ্রিকার ৫টি দেশ থেকে কোন হজযাত্রী আসতে দেয়া হয়নি। যুদ্ধবিগ্রহ থাকায় ইরাক, সিরিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশ থেকে হজযাত্রী এসেছে কম। এছাড়া অভ্যন্তরভাগ থেকে অবৈধভাবে মক্কায় প্রবেশকালে প্রায় লাখ খানেক অভিবাসীকে ফেরত দেয়া হয়েছে। ফলে হজযাত্রীর সংখ্যা এবার অন্য বছরের তুলনায় কম হওয়ায় হজযাত্রীরা তুলনামূলক স্বাচ্ছন্দ্যে হজ পালন করতে পারছেন।

 

মুসলমানদের কাছে অতি পবিত্র একটি নিদর্শন জমজম কূপ। পবিত্র মক্কা নগরীতে কাবা শরিফের অনতিদূরে অবস্থিত ইসলামের ইতিহাসের অমর সাক্ষী জমজম কূপ। অনেকে একে আবে জমজম কূপ বলেন। এ কূপের পবিত্র পানি নেক নিয়তে পান করলে আল্লাহ তার মনের বাসনা পূর্ণ করেন। রোগ থেকে মুক্তি দেন। এ কূপের রয়েছে যেমন সৃষ্টির এক মর্মস্পর্শী কাহিনী, তেমনি রয়েছে এর অলৌকিক অনেক মাজেজা। সৃষ্টির শুরু থেকে প্রতিদিন এ কূপ থেকে গড়ে ৬৯ কোটি ১২ লাখ লিটার পানি উত্তোলন করা হচ্ছে। কিন্তু কূপের পানি এক বিন্দুও কমে নি। অলৌকিকত্বের মধ্যে কূপে সব সময় পানি ভরে যাচ্ছে। এ এক অলৌকিক ঘটনা। একটি দিনের জন্য পানিশূন্য হয় নি জমজম কূপ। হজযাত্রীরা হজ করতে গিয়ে মনের পবিত্র ইচ্ছা নিয়ে পান করেন এ কূপের পানি। তারা সাফা-মারওয়া পাহাড়ের মধ্যে দৌড়ান। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইসলামের ইতিহাসের এক কাহিনী। তা হলো- নবী ইব্রাহিম (আ.)-এর কোন সন্তান হচ্ছিল না। তিনি একটি সন্তানের জন্য আকুল হয়ে পড়লেন। তখন তার বয়স ৮৬ বছর। ঘরে স্ত্রী হাজেরা (আ.)। তার গর্ভে আল্লাহ দান করলেন একটি পুত্রসন্তান। তার নাম রাখলেন ইসমাইল। তাকে পেয়ে যেমন খুশি ইব্রাহিম, তেমনি খুশি বিবি হাজেরা। এ সময় আল্লাহর নির্দেশে হযরত ইব্রাহিম (আ.) তার আদরের ছেলে ইসমাইল ও বিবি হাজেরাকে নিয়ে রওনা দিলেন পবিত্র মক্কা নগরীর দিকে। তখন মক্কায় কোন জনবসতি ছিল না। চারদিকে শুধু মরুভূমি। এখানে-ওখানে পাহাড়। আজ মক্কা নগরীতে পরিণত হয়েছে। বিশ্ব মুসলিমের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে। সারাক্ষণ ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা তাওয়াফ করছেন পবিত্র কাবাঘর। অদৃশ্য এক কান্না ঝরছে তাদের হৃদয়ে। দীর্ঘ সময় পথ চলতে চলতে হযরত ইব্রাহিম, বিবি হাজেরা ও শিশুপুত্র ইসমাইল এসে পৌঁছলেন মক্কায়। স্ত্রী ও সন্তানের জন্য সঙ্গে নিয়েছিলেন এক ব্যাগ খেজুর ও চামড়ার একটি ভাঁড়ে কিছু পানি। ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্ত্রী ও সন্তানকে উট থেকে নামতে বললেন হযরত ইব্রাহিম। তারা উট থেকে নামার পর হযরত ইব্রাহিম পেছন ফিরে বাড়ির দিকে রওনা হলেন। প্রথমে বিবি হাজেরা কিছু বুঝে উঠতে পারলেন না। কিছুক্ষণ পরে তিনি পেছন থেকে হযরত ইব্রাহিমকে ডাকলেন- ও প্রিয় স্বামী আপনি আমাদেরকে এই জনমানবশূন্য উপত্যকায় নিঃসঙ্গ ফেলে যাচ্ছেন কেন? এখানে তো কোন পানি নেই। খাবার নেই। নেই কোন মানুষজন। তার এ ডাকে সাড়া দিলেন না হযরত ইব্রাহিম। তিনি সামনের দিকে চলতেই লাগলেন। এ অবস্থায় হযরত ইব্রাহিম বার বার একইভাবে ডাকতে লাগলেন তাকে। কিন্তু আল্লাহর হুকুম না থাকায় তিনি পিছন ফিরে তাকাতে পারলেন না। তখন হযরত ইব্রাহিম অনেকটা দূরে চলে এসেছেন। আবার হযরত হাজেরা তাকে একইভাবে ডাকলেন। এবার তিনি মুখে কোন কথা না বলে সম্মতিসূচক মাথা নাড়লেন। বিবি হাজেরা তার জবাব পেয়ে গেলেন। তিনি ধরে নিলেন, নবী ইব্রাহিম (আ.) তাদেরকে এই ঊষর মরুর বুকে ফেলে যাচ্ছেন আল্লাহর ইচ্ছায়। যে আল্লাহর ইচ্ছায় তিনি তাদেরকে এখানে ফেলে যাচ্ছেন নিশ্চয়ই সেই আল্লাহ তাদের উত্তম অভিভাবক। তিনিই দেখবেন তাদেরকে। হাজেরা বললেন, আল্লাহর ইচ্ছায় আমাদেরকে এখানে ফেলে যাচ্ছেন। সুতরাং আমরা পরাজিত হবো না। আল্লাহ নিশ্চয়ই আমাদেরকে দেখবেন। স্ত্রী ও সন্তানকে ফেলে রেখে হযরত ইব্রাহিম আরও সামনের দিকে এগিয়ে গেলেন। তিনি এতক্ষণ পেছন ফিরে স্ত্রী ও সন্তানের দিকে তাকান নি। এবার অনেকটা দূরে এসে তিনি পেছনে তাকালেন। না, এখন আর তার সন্তান ও স্ত্রীকে দেখা যাচ্ছে না। তিনি পেছন ফিরে সেখানে দাঁড়িয়ে আল্লাহর কাছে মোনাজাত করলেন- হে আল্লাহ! আপনার পবিত্র ঘরের কাছে বিরান উপত্যকায় রেখে যাচ্ছি আমার স্ত্রী ও সন্তানকে, যাতে তারা আপনার প্রার্থনা করতে পারে। হে আল্লাহ! তুমি তাদের প্রতি অন্যরা যাতে অনুগামী হয় এমন করে দাও। তাদেরকে খাদ্যের ব্যবস্থা করো, যার জন্য তারা তোমার শুকরিয়া আদায় করবে। এ অবস্থায় শিশু ইসমাইলকে নিয়ে সেই নিঃসঙ্গ মরুতে দিন কাটাতে লাগলেন বিবি হাজেরা। আস্তে আস্তে তাদের খাবার ও পানি ফুরিয়ে আসে। খাদ্যে ঘাটতি দেখা দেয়ায় মা হাজেরার বুকে দুধ কমে আসতে থাকে। যে সামান্য পানি সঙ্গে এনেছিলেন তাও ফুরিয়ে যাচ্ছে। শিশু ইসমাইল ঠিকমতো মা’র দুধ না পেয়ে কান্নাকাটি করে। তার কান্না সহ্য করতে পারেন না মা হাজেরা। সন্তানের কান্না দেখে মায়ের মন ব্যাকুল হয়ে ওঠে। তিনি নিরুপায় হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে অবস্থা এমন হলো যে, খাবার ও পানি ফুরিয়ে যাওয়ায় মা হাজেরার বুকের দুধ একেবারে শুকিয়ে যায়। ফলে শিশু ইসমাইল মা’র দুধ পান করতে গিয়ে তার স্বরে কান্না করেন। ঠিকমতো খাবার না পেয়ে তার বুকের হাড় বেরিয়ে পড়তে থাকে। এ সময় আর স্থির থাকতে পারেন না মা হাজেরা। কাছেই ছিল সাফা পাহাড়। সেখানে গেলে হয়তো কারো সহায়তা পাওয়া যাবে, কোন মানুষের সন্ধান মিলবে- এমন আশায় তিনি আরোহণ করলেন সাফা পাহাড়ের চূড়ায়। এদিক-ওদিক তাকালেন। কিন্তু না, যে আশা নিয়ে তিনি এখানে উঠেছেন তার সে আশা পূরণ হলো না। তিনি নিচে তাকালেন। কোথাও কোন জনমানব নেই। নেই কোন খাবারের ব্যবস্থা। তিনি উতলা হয়ে উঠলেন। এখন কি করবেন। তার ইসমাইল যে অভুক্ত। পানি নেই। খাবার নেই। তার নিজেরও একই অবস্থা। তিনি স্থির থাকতে পারলেন না। সাফা পাহাড় থেকে নেমে এলেন উপত্যকায়। পাশেই দেখতে পেলেন মারওয়া পাহাড়। একই আশা নিয়ে ছুটে গেলেন সেখানে। মারওয়ার চূড়ায় আরোহণ করে দেখলেন কোথাও কিছু নেই। কার কাছে তিনি এখন সহায়তা পাবেন। তিনি উতলা হয়ে উঠলেন। মায়ের মন। কোনভাবে নিজেকে ধরে রাখতে পারলেন না। তিনি সেখান থেকে সমতলে নেমে এলেন। আবার দৌড়ে গেলেন সাফার চূড়ায়। সেখান থেকে আবার মারওয়া পাহাড়ে। এভাবে সাতবার তিনি দৌড়ালেন সাফা-মারওয়ায়। শেষ বার যখন তিনি মারওয়া পাহাড়ে আরোহণ করলেন তখন শুনতে পেলেন এক গায়েবি আওয়াজ- ‘সাহায্য কর, যদি তুমি পার’। এ আওয়াজ আর কারো নয় স্বয়ং ফেরেশতা জিবরাইল (আ.)-এর পক্ষ থেকে পাঠানো হলো। মা হাজেরা ফিরে এলেন ইসমাইলের কাছে। দেখতে পেলেন ক্ষুধায় ক্লান্ত, পানির পিপাসায় কাতর ইসমাইল এখন খেলছে। তার মুখে হাসি। অতি স্বাভাবিক সে। আর দেখলেন তিনি ছোট্ট পা দিয়ে মাটিতে যেখানে আঘাত করছেন সেখানে মাটি ফেটে বেরিয়ে আসছে পানি। এই পানির ফোয়ারা বের করতে সহায়তা করেন হযরত জিবরাইল (আ.)। তিনিই মাটি খুঁড়ে খুঁড়ে পানি বের করে দেন। এই পানি বের হয়ে আসতে থাকে ফল্গুধারায়। তা দেখে বিবি হাজেরারও যেন আনন্দ আর ধরে না। তিনি হাতের তালুবন্দি করে পানি তুলে তা পান করলেন। পিপাসা নিবারণ করলেন। সন্তান ইসমাইলকে দান করলেন দুধ। এ জন্য তিনি আল্লাহর প্রতি শুকরিয়া আদায় করলেন। বালু, কাদা দিয়ে এই ফোয়ারার চারদিকে বাঁধ দিয়ে দেন তিনি। যাতে এ পানি ছড়িয়ে পড়তে না পারে। পানি সেই বাঁধকে ভাঙে নি।  কুদরতি সেই ফোয়ারা, আর বাঁধ মিলে সৃষ্টি হলো জমজম কূপ। এর কিছু পরে ইয়েমেন থেকে জুরহুম গোত্রের কিছু মানুষ যায় মক্কায়। সেখানে তারা বসবাস শুরু করে। তাদের একজনকে বিয়ে করেন হযরত ইসমাইল (আ.)। পবিত্র কাবা দেখাশোনার সম্মান অর্জন করেন ইসমাইল। এরপর এ দায়িত্ব পান জুরহুম গোত্র। এক সময় এসব মানুষ পবিত্র নগরীর পবিত্রতা লঙ্ঘন করতে শুরু করে। তখন একেবারে শুকিয়ে যায় জমজম কূপ। তাদেরকে শাস্তি দেয়ার জন্য এমন ঘটনা ঘটে। এমনকি জমজম কূপ কোথায় ছিল সেই চিহ্নটি পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া যেত না। কয়েক শতাব্দী ধরে মানুষ চিহ্নিত করতে পারে নি যে জমজম কূপ কোন স্থানে ছিল। পরে জমজম কূপের অবস্থান শনাক্ত করেন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর দাদা আবদুল মুত্তালিব।
মহানবী (সা.)-এর বক্ষ ধৌতকরণ
মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) তখন কিশোর। তিনি দুধ-মা হালিমার ঘরের কাছে অন্য ছেলেদের সঙ্গে খেলছিলেন। তখন সেখানে হাজির হন হযরত জিবরাইল (আ.)। তিনি মহানবীকে উপুর করে শোয়ালেন। তিনি মহানবীর বক্ষ উন্মুক্ত করলেন। তার হৃৎপিণ্ড বাইরে বের করে আনলেন। তা থেকে এক খণ্ড মাংস ফেলে দিলেন এবং বললেন, ‘আপনার ভিতরে এই অংশটি ছিল শয়তান’। এরপর তিনি মহানবী (সা.)-এর হৃৎপিণ্ড একটি স্বর্ণের পাত্রে রাখলেন। তাতে ভরা ছিল জমজম কূপের পানি। তা দিয়ে ধুয়ে দিলেন নবীজির হৃৎপিণ্ড। তারপর তা বসিয়ে দিলেন বুকের যথাস্থানে।
জমজমের ক্ষমতা
জমজম পানির রোগমুক্তি দেয়ার ক্ষমতা আছে। ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, মহানবী (সা.) বলেছেন, পৃথিবীর সবচেয়ে উত্তম পানি হলো জমজমের পানি। এতে রয়েছে পূর্ণাঙ্গ খাদ্য উপাদান ও রোগ থেকে মুক্তি দেয়ার ক্ষমতা। জাবির (রা.) বলেন, আমি মহানবী (সা.)কে বলতে শুনেছি যে, যেকোন রোগমুক্তির নিয়ত করে জমজমের পানি পান করলে রোগমুক্তি মেলে। আরেক হাদিসে বলা হয়েছে, যদি তুমি তৃষ্ণা নিবারণের জন্য এই পানি পান কর তাহলে তৃষ্ণা দূর হবে। যদি পুরো পেটপুরে এই পানি পান করো খাদ্যের পরিবর্তে তাহলে তা খাদ্যের পরিপূরক হবে। যদি তুমি রোগমুক্তির জন্য এই পানি পান করো তাহলে তুমি রোগমুক্তি পাবে।

আরাফাত ময়দান
পবিত্র মক্কা নগরী থেকে পূর্বদিকে অবস্থিত আরাফাত পাহাড়। কেউ কেউ একে জাবাল আরাফাত বলেও চেনেন। আরাফাত উপত্যকায় অবস্থিত এ পাহাড়। এ সেই স্মৃতিধন্য পাহাড় যেখানে দাঁড়িয়ে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) তার বিদায় হজের ভাষণ দিয়েছিলেন। জীবনের শেষ দিকে তিনি যে হজ করেন তখন এ পাহাড়ে দাঁড়িয়ে দিয়েছিলেন ঐতিহাসিক বিদায় হজের ভাষণ। তাই আরাফাত দিবসে হজযাত্রীরা সারা দিন অবস্থান করেন এ ময়দানে। তারা এদিন আল্লাহর ইবাদতে মগ্ন থাকেন। এরপর সংগ্রহ করেন পাথর। সেই পাথরই পরে শয়তানকে লক্ষ্য করে নিক্ষেপ করেন। এ আরাফাতের ময়দানে রয়েছে ঐতিহাসিক নামিরা মসজিদ। এখান থেকেই সমবেত হজযাত্রীদের উদ্দেশে খুতবা দেয়া হয়। পাহাড়বেষ্টিত যে উপত্যকা তার পুরোটাকেই বলা হয় আরাফাতের ময়দান। তবে কখনও কখনও এ এলাকাটিকে অনেকে আরাফাত পাহাড় হিসেবে অভিহিত করে থাকেন। ইসলামে আরাফাতের ময়দানের রয়েছে অসীম গুরুত্ব। কারণ, হজের সময় হজযাত্রীরা ৯ই জিলহজ তারিখে সারা দিন কাটান এ ময়দানে। এদিন লাখ লাখ হজযাত্রীর পদচারণায় আর সমবেত কণ্ঠে ‘লাব্বায়েক আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক’ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো আরাফাত। তাদের পরনে সাদা কাপড়। ইহরাম বাঁধা হজযাত্রীরা যেন দুনিয়ার সবকিছুকে পেছনে ফেলে এক আল্লাহর প্রেমে মশগুল হয়ে পড়েন। অত্যন্ত উত্তাপে যাতে তাদের কষ্ট না হয় সে জন্য সৌদি আরব সরকার সেখানে কৃত্রিম উপায়ে বাষ্পপানি ছিটিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করেছে। লাগানো হয়েছে গাছ। এ বছর শক্ত-সামর্থ্য ৬০ হাজারেরও বেশি নিরাপত্তা সদস্যকে মোতায়েন করেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। এছাড়া পবিত্র স্থান সমূহ ছাড়াও দেশজুড়ে হাজার হাজার সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মুখমণ্ডল শনাক্তের প্রযুক্তিও সংযোজিত হয়েছে। হাজীদের নিরীক্ষণ ও স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ব্যবহৃত হবে নতুন ইলেকট্রনিক ব্যবস্থা।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now