শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » ইফতার মাহফিলে হিন্দুনেতা নেত্রীদের উপস্থিতি এবং..

ইফতার মাহফিলে হিন্দুনেতা নেত্রীদের উপস্থিতি এবং..

iftar23
মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : পবিত্র রমজানের প্রতিদিনের আনন্দঘন সময় হলো ইফতারের মুহূর্ত। এটি দোয়া কবুলের সময়। সুবহে সাদিক থেকে পানাহার ও জৈবিক প্রয়োজন পূরণ বর্জন করে সূর্যা¯Í যাওয়ামাত্র যে পানাহার করা হয় ইসলামের পরিভাষায় তাকে ইফতার বলে। সারাদিন উপোস থাকার পর ইফতারের মুহূর্তটি বান্দা এবং আলøাহর নিকট বিশেষ মর্যাদার দাবী রাখে। ইফতারের মাধ্যমে রোজার পূর্ণতা আসে। এ সময়টি আলøাহ মুমিনের পুরস্কারের জন্য নির্ধারণ করেছেন।
নানা ধরনের খাবার সামনে পড়ে থাকা সত্তে¡ও আলøাহর বিধান না থাকায় খাচ্ছে না-এটা আলøাহর কাছে খুবই পছন্দের। রাসূলুলøাহ সালøালøাহু আলাইহি ওয়াসালøাম বলেছেন, রোজাদারের খুশির মুহূর্ত দুটি : এক. ইফতারের মুহূর্ত। দুই. তাকে যেদিন জান্নাতে স্বাগত জানানো হবে। বান্দা যখন ইফতার সামনে নিয়ে বসে থাকে, আলøাহ তখন ফেরেশতাদের কাছে গর্ব করেন। ইফতারের সময় দোয়া করলে তা কবুল হওয়ার বিশেষ সম্ভাবনা থাকে। ইফতারের কোনো দোয়া বৃথা যায় না। হাদিসে আছে, রাসূলুলøাহ সালøালøাহু আলাইহি ওয়াসালøাম বলেছেন, ‘‘আলøাহ তায়ালা রমজান মাসে প্রতিদিন ইফতারের সময় দশ লাখ লোককে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন।’’ ইফতারের সময় এ দোয়াটি পড়ার কথা হাদিসে আছে : ‘আলøা হুম্মা লাকা সুমতু ওয়া আলা রিজকিকা আফতারতু।’ ‘হে আলøাহ! আমি তোমার জন্যই রোজা রেখেছিলাম এবং তোমার রিজিক দ্বারাই ইফতার করলাম।’
অতএব ধর্মীয় দৃষ্টিতে ইফতারের মুর্হুতটি অত্যন্ত মর্যাদার দাবী রাখে। এই সময়টি পবিত্র, তাই বান্দার শরীর পবিত্র থাকাটাই সঙ্গত। কিন্তু ইফতারের পবিত্র মজলিসে যদি কোন অপবিত্র লোকের আগমন ঘটে যে লোক প্রশ্্রাব করে পানি খরচ করলনা অথবা মদ পান করলো অথবা যে কোন কারণে সে অপবিত্র রইলো এমন লোক যদি মুসলমানের পবিত্র ইফতার মাহফিলে যোগদান করে তাহলে ঐ মাহফিলের পবিত্রতা কতটুকু বজায় থাকলো?
অথচ রাসূলুলøাহ সালøালøাহু আলাইহি ওয়াসালøাম কঠোরহুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেছেন, যে লোক রোজা রাখেনি সে যেন আমার ঈদগাহে না আসে।’
ইফতার নিছক একটি পানাহার নয় বরং এর রয়েছে ধর্মীয় গুরুত্ব, মর্যাদা ও গ্রহণযোগ্যতা। তাই ইফতারের আয়োজন অবশ্যই হতে হয় শতভাগ হালাল টাকা দিয়ে। চুরি, ডাকাতি, লুণ্ঠন, জালিয়াতি, দখল, নিয়োগবাণিজ্য, রাষ্ট্রীয় বা সম্পদ আত্মসাৎ, চাঁদাবাজি, কাজ না করে উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা, ঘুষ, সুদ ইত্যাদির মাধ্যমে অর্জিত অর্থ দ্বারা ইফতারের আয়োজন করলে ইফতার হবে বটে, তা সারাদিনের সংযম সাধনাকে নিষ্ফল করে দেবে। এক জন রোজাদারব্যক্তি কোন বিধর্মীর পক্ষ থেকে ইফতার করাটা কতটুকু যুক্তি যুক্ত তা চিন্তাকরার বিষয়। কারণ ভিন্নধর্মের অনুসারীর টাকা পয়সা হালাল হারামের বিষয়টি অনেকটাই স্পষ্ট হওয়া সত্বেও আমরা সুদ-ঘোষ,লুট-পাটের টাকা,অমুসলিমের খাদ্যদ্বারা ইফতার করছি।
ইফতার-পূর্ব সময় দোয়া কবুলের বিশেষ সময়। মহানবী সালøালøাহু আলাইহি ওয়াসালøাম বলেছেন, তিন ধরনের ব্যক্তির দোয়া ফিরিয়ে দেওয়া হয় না। ১. রোজাদার যখন ইফতার করে; ২. নিরপে শাসক ও ৩. মজলুম ব্যক্তি। তিনি (সা.) আরও বলেছেন, ইফতারের সময় রোজাদারের দোয়া খুব তাড়াতাড়ি কবুল হয়। রমজান মাসে প্রতিদিন ওই সময়ে আলøাহতায়ালা ৬০ হাজার লোককে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন। তাই তো অনেক সচেতন রোজাদারকে দেখা যায় তারা ১০-১৫ মিনিট আগেই ইফতার সামনে নিয়ে বসে যান, অতঃপর বিনয় ও নিষ্ঠার সঙ্গে দোয়ায় লিপ্ত হন। রোজাদাররা ইফতারের আসরে বসে কোনো প্রার্থীকে বা অভাবীকে না বলেন না। বরং নিজের জন্য আগ্রহভরে তৈরি করা খাবার অন্যকে বিলিয়ে দিয়ে আরও বেশি আনন্দ ও তৃষ্টি পেয়ে থাকেন।
রাসূলুলøাহ সালøালøাহু আলাইহি ওয়াসালøাম বলেছেন, কেউ যদি রমজান মাসে কোনো রোজাদারকে ইফতার করায় তাহলে ওই ইফতার করানোটা তার গুনাহ মাফ ও জাহান্নাম থেকে মুক্তির কারণ হবে। তিনি আরও বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে এক ঢোক পানি অথবা এক ঢোক দুধ অথবা একটা শুকনো খেজুর দিয়ে ইফতার করাবে আলøাহ তাকে আমার হাউসে কাউসার থেকে পানি পান করাবেন, যার ফলে সে জান্নাতে পৌঁছা পর্যন্ত পিপাসিত হবে না। তিনি আরও বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো জিহাদকারীর সামানের জোগান দেবে, হজযাত্রীর সামানের জোগান দেবে বা তার অবর্তমানে তার পরিবারের লোকজনের দেখাশোনা করবে, কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে সে তাদের মতোই সওয়াব পাবে। অথচ তাদের সওয়াব থেকে কিছুই কমবে না।
ইফতারের মুহূর্তে অযথা গল্প-গুজবে লিপ্ত না হওয়াই ভালো। এ সময় মনে মনে জিকির ও তওবা করা উচিত। অনেকে এক সঙ্গে ইফতার করলে সম্মিলিতভাবে দোয়াও করা যেতে পারে। তবে ইফতারের মতো একটি গুরুত্বপুর্ন সময়ে যদি আমরা কোন ফরজ তরককরে ফেলি অথবা গোনাহ হওয়ার মতো কোন আমল না করা চাই। ইফতার পবিত্র রমজানের একটি অনুষংগ হওয়া সত্বেও ইদানিং আমাদের দেশে ইফতারের এই ইবাদাতকে আমরা অনেকটা সামাজিক ফ্যাশনে পরিনত করে ফেলেছি। রাজনৈতিক ফোরামে ও নববিবাহিত ফ্যামেলির মধ্যে কোন কোন সময় ইফতার নিয়ে লংকা কান্ডও ঘটে। অনেক জায়গায় দেখা গেছে, টেন্ডার আর চাদাঁবাজীর টাকা দিয়ে আলীশান ইফতার পার্টি! অতিথি হিসেবে দেখাযায় বেরোজাদার ও হিন্দুনেতা-নেত্রীদের।
সাহাবী হযরত সালমান ফারেসী (রা.) থেকে বর্ণিত রাসূলুলøাহ সালøালøাহু আলাইহি ওয়াসালøাম বলেন, যে ব্যক্তি কোন রোজাদারকে ইফতার করাবে তার গুনাহ মাফ হয়ে যাবে, সে জাহান্নাম থেকে মুক্তি লাভ করবে। ঐ রোজাদারের সাওয়াবের সমপরিমান সাওয়াব সে লাভ করবে। তবে ঐ রোজাদারের সাওয়াবে কোন কম করা হবে না ।
(সাহাবায়ে কেরাম একথা শুনে বলেন) আমরা বললাম, হে আলøাহর রাসূল! আমরা সবাই রোযাদারকে ইফতার করাতে সÿম নই। রাসূলুলøাহ সালøালøাহু আলাইহি ওয়াসালøাম বললেন: পানি মিশ্রিত এক চুমুক দুধ বা একটি শুকনো খেজুর অথবা এক ঢোক পানি দ্বারা যে ব্যক্তি কোন রোজাদারকে ইফতার করাবে আলøাহ তাকে এ পরিমাণ সাওয়াব দান করবেন। আর যে ব্যক্তি কোন রোজাদারকে পরিতৃপ্তভাবে খানা খাওয়াবে আলøাহ তায়ালা তাকে আমার হাউযে কাউসার হতে এমন পানীয় পান করাবেন। যার ফলে সে জান্নাতে প্রবেশ করার র্পুবে তৃষ্ণার্ত হবে না। (আলম গীরী)।
উপরের ঘোষণা অনুযায়ী জান্নাতের যাওয়ার পুর্বশর্ত হলো ঈমান থাকা । কারো যদি ঈমানই থাকলনা সে ব্যক্তি যতই রোজাদারকে ইফতার করাক সে ব্যক্তির জন্য হাওজে কাওসার পান আর জান্নাতের কল্পনা করা র্নিবুদ্ধিতার পরিচায়ক। রমজান হলো তাক্বওয়া অর্জনের মাস।
ভোর থেকে সন্ধ্যা র্পযন্ত যারা সকল প্রকার পানাহার পরিহার করে শরীয়ত সম্মত পন্থায় রোজা আদায় করে ইফতার করবেন তাদের জন্য আলøাহর নিকট রয়েছে বিশেষ পুরস্কার। পরিশেষে আলøাহপাকের নিকট র্প্রাথনা জানাই যেন সত্যিকার ভাবে তাক্বওয়া অর্জনের তওফিক দান করেন। আমীন।।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now