শীর্ষ শিরোনাম
Home » মৌলভীবাজার » মৌলভীবাজার মাদরাসার মুহতামিম কর্তৃক শিক্ষক-ছাত্রের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের !

মৌলভীবাজার মাদরাসার মুহতামিম কর্তৃক শিক্ষক-ছাত্রের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের !

molএহসান বিন মুজাহির, মৌলভীবাজার থেকে: মৌলভীবাজার শহরের শাহ মোস্তফা রোডস্থ দারুল উলুম টাইটেল মাদরাসা মসজিদে দ্বিতীয়বারের মত  (৮ রমজান) গতশুক্রবার মুসল্লিরা পুলিশী প্রহরায় জুমআর নামাজ আদায় করেন। স্থানীয় মুসল্লিদের মাঝে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কি এমন ঘটনা ঘটে যাওয়ার আশঙ্কায় আবার মাদরাসা মাঠে পুলিশকে প্রহরায় বসাতে হলো? আল্লাহর ঘর পবিত্র মসজিদে নামাজ আদায়ের জন্য মুসল্লিরা আসেন। এখানে কেউ রাজনীতি বা মারামারি জন্য আসেন না। তাহলে গত শুক্রবার এবং আজকের শুক্রবার জুমআর নামাজের আগ থেকেই পুলিশের ভ্যান এবং এত পুলিশের উপস্থিতি কেন? মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত মুহতামিম সৈয়দ মাসুক আলীকে এব্যপারে স্থানীয় মুসল্লিরা জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে দ্রুত পাশ কেটে চলে যান। মাদরাসা কমিটির সভাপতি মাওলানা সৈয়দ মাসউদ আহমদ এ ব্যাপারে মুখ খুলতে নারাজ। সুত্রে জানা যায়, দারুল উলুম মাদরাসার কমিটি ও মুহতামিম কর্র্তৃক একসাথে ১২জন শিক্ষক ও সর্বশেষ দারুল উলুম মসজিদেরও খতীব ও মুহাদ্দিস মাওলানা মুজাহিদ আহমদ কালাপুরীর বিদায়কে কেন্দ্র করে গত দু’সাপ্তাহ ধরে মসজিদ-মাদরাসায় দফায়-দফায় উত্তেজনা বিরাজ করছিলো। গত শুক্রবারও জুমআর নামাজের পর দারুল উলুম মসজিদ-মাদরাসার মাঠে মুসল্লি-কমিটির মাঝে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছিলো। পরে পুলিশ ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর ভাই সৈয়দ মুসতাক আলী সোমবার বিষয়টি সমাধান করা হবে বলে উত্তেজিত মুসল্লিদের শান্ত করেন। একই ঘটনার জের ধওে আজও বাদ জুমআ মুসল্লিদের মাঝে কিছুটা উত্তেজনা সৃষ্টি হলো। এসময় মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল ছালেকসহ উপস্থিত অন্যান্য পুলিশ জুমআর আগত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে ঘোষণা করেন মাদরাসার ছাত্ররা ব্যতিত বাকি সবাই মাদরাসার ভেতর থেকে দ্রুত বের হয়ে যান। মুসল্লিরা মাদরাসা থেকে বের হতে বিলম্ব করলে পুলিশ এগিয়ে এসে মুসল্লিদের বের করে দেন। তবে বিশেষ একটি দলের নেতা-কর্মীদের মাদরাসার ক্যাম্পাসে অবস্থান করলে তাদের বের করতে পুলিশের প্রচেষ্টা চোঁখে পড়েনি। এসময় প্রিন্ট, ইলেক্টনি ও অনলাইন মিডিয়ার কর্মীরা উপস্থিত থেকে আজকের দৃশ্যগুলেওা ক্যমেরাবন্দি করেছেন। এদিকে মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত মুহতামিম সৈয়দ মাশুক মাশুক আলী, পিতা মৃত সৈয়দ আব্দুল জব্বার, সাং দর্জির মহল থানা ও জেলা মৌলভীবাজার, তিনি উত্তপ্ত পরিস্থিতি ও অনভিপ্রেত ঘটনার জন্য সদ্যবিদায়ী মাদরাসার ২জন শিক্ষক, একজন ব্যবসায়ী ও ৪জন ছাত্রের নাম উল্লেখ করে মৌলভীবাজার মডেল থানায় অফিসার ইনচার্জ বরাবর লিখিত অভিযোগ (মামলা) দায়ের করেন। লিখিত অভিযোগ পত্রে বিবাদী (আসামী ) হিসেবে যাদের নাম উল্লেখ করেছেন তারা হলেন ১. মাওলানা মুজাহিদ আহমদ (৩৭) পিতা মৃত মাওঃ মুসলেহ উদ্দিন। ২.তারেক আহমদ (৬০) পিতাঃ মৃত মানোয়ার আলী। ৩.মাওলানা সাইফুর রহমান ফয়সল (২৮) ,পিতা মাওলানা আব্দুল বারী ধর্মপুরী ৪. হাসান আহমদ (২৩) পিতা মৃত মাওলানা মুসলেহ উদ্দিন। ৫. ইয়াহিয়া আহমদ (২৪) পিতাঃ মৃত মাওঃ আঃ মালেক। ৬. আজফার খান (২৪), পিতাঃ মৃত মাওঃ আফজাল খান। ৭. জিয়াউর রহমান নকীব (২৫) পিতাঃ মাওঃ ইমদাদুর রহমানসহ অজ্ঞাতনামা আরো ২০/২৫ জন। বিবাদীদের বিরুদ্ধে এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করেন যে, ১ ও ৩ নং বিবাদী ইতিপুর্বে দারুল উলুম মাদরাসার শিক্ষক ছিলেন এবং ৪ নং ও ৭ নং আসামী উক্ত মাদরাসার ছাত্র ছিলো। ২ নং বিবাদী একজন ব্যবসায়ী। বর্ণিত ১ ও ৩ নং বিবাদী উতিপূর্বে উক্ত মাদরাসায় কর্মরত থাকিয়া ২নং বিাদীর প্রত্যক্ষ প্ররোচনায় ৪ ও ৭ নং আসামীদের পরস্পর সহযোগীতায় দারুল উলুম মাদরাসায় ইসলামী জঙ্গী সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালনাসহ কোমলময়ী ছাত্রদের মধ্যে এগুলো শিক্ষা প্রদান করিতে থাকিলে বাদী মাদরাসার প্রিন্সিপাল এবিষয়টি অবগত হলে বোর্ড মিটিংয়ের মাধ্যমে সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ি ১ ও ৩ নংবিবাদীকে শিক্ষক হতে বহিষকার ও ছাত্রদেও মাদরাসা হতে বহিষ্কার করা হয়। অভিাযোগ পত্রে এ কথাটিও উল্লেখ আছে ১ ও ৩ নং বিবাদী বিভিন্ন সময় সরকার বিরোধী কার্যক্রমসহ বিভিন্ন কাজে উৎসাহ-প্রদান ও জনসাধারণের গাড়ী ভাঙচুরের জড়িত। অতএব উপরোক্ত বিষয়ে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন বাদী। আর এদিকে বিবাদীগণের বক্তব্য হলো, তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিাযোগগুলো শতভাগ মিথ্যে ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। মুহতামিমের দুর্নিতী, স্বৈরাচারী ও একনায়কতন্ত্রের বিরোধীতা করার কারণেই প্রবীণ শায়খুল হাদিস, বেফাকের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি, মৌলভীবাজার ওলামা পরিষদের সভাপতি শায়খুল হাদিস আল্লামা বারী ধর্মপুরীসহ যোগ্য আরো ১৩জন সিনিয়র শিক্ষকে কোন কারণ ছাড়াই একসাথে বিদায় কর হয়েছে। সারা বছর মোট ১৭ জন শিক্ষককে বিদায় করেছেন মুহতামিম। প্রবীণ শিক্ষকদের বিদায়কে কেন্দ্র করেই উত্তেজনা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে মৌলভীবাজারের আলেম সমাজ ও সাধারণ মুসল্লিদের মাঝে। আর এ কারণেই মুহতামিম মাশুক আলী বিদায়কৃত বিবাদী শিক্ষদেরর উপর ঁেক্ষপে মিথ্যে মামলা, অভিযোগ দায়ের করেছেন। আর ছাত্রদের বক্তব্য হলো শিার্থীদের বিভিন্ন ন্যায্য দাবি-দাওয়া নিয়ে তারা দীর্ঘদিন ধরে মাদরাসার মুহতামিম ও কমিটির কাছে দাবি জানিয়ে আসছিলো। কিন্তু কোন আশাতীত কিছু না পাওয়ায় অবশেষে তারা বেফাক বোর্ডেও স্মরনাপন্ন হয়ে স্মারকলিপী পর্যন্ত দেয়। শিার্থীদের স্মারলিপি, বিভিন্ন অভিযোগসহ দারুল উলুম মাদরাসার অভ্যন্তরিণ বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে এ বছর বেফাক বোর্ড দারুল উলুম মাদরাসা থেকে বেফাকের কেন্দ্রীয় পরীার কেন্দ্র সাময়িক বিলুপ্ত ঘোষণা করে। আর এদিকে শিার্থীদেও দাবি না মানার কারণে ৫টি জামাতের প্রায় শতাধিক শিার্থীরা বেফাকের কেন্দ্রীয় পরীা বর্জন করে। এই সুত্র ধরে ভারপ্রাপ্ত মুহতামিম বিবাদী ছাত্রদের বহিষ্কার করেন এবং তাদেরকেও মামলায়, অভিযোগে অর্ন্তভুক্ত করেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now