শীর্ষ শিরোনাম
Home » মৌলভীবাজার » শ্রীমঙ্গল আনোয়ারুর উলুম মাদরাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে প্রশংসাপত্র বিতরণ নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

শ্রীমঙ্গল আনোয়ারুর উলুম মাদরাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে প্রশংসাপত্র বিতরণ নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

এহসান বিন মুজাহির: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের হবিগঞ্জ রোডস্থ আনোয়ারুর উলুম ফাজিল (ডিগ্রী) মাদরাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দাখিল পরীক্ষার প্রশংসাপত্র বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়াগেছে।
জানাগেছে, দাখিল উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে  প্রতিষ্ঠানে প্রতি প্রশংসাপত্রে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৫০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। যা পরিশোধ করতে হিমশিম খাচ্ছেন অনেক শিক্ষার্থীর অভিভাবকরা। প্রশংসাপত্রের ফি কমাতে বারবার কর্তৃপক্ষের কাছে ধর্ণা দিয়েও লাভ হয়নি শিক্ষার্থীদের। আনোয়ারুর উলুম ফাজিল (ডিগ্রী) মাদরাসায় প্রশংসাপত্রের ফি বাবদ অতিরিক্ত টাকা আদায় করায় অভিভাবক মহলসহ সচেতন শ্রীমঙ্গবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষার্থীদের অনেকেই উচ্চ মাধ্যমিক প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে নির্ধারিত ভর্তি ফি যোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছেন, আবার ওইদিকে প্রশংসাপত্রের অতিরিক্ত ফি। এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার অন্যান্য দাখিল মাদরাসায় ৫০/১০০ টাকা করে রাখা হয়েছে। কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই ৫০০ টাকা করে প্রশংসাপত্রের ফি আদায় হচ্ছে না। এব্যাপারে শিক্ষার্থীরা শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রনধীর কুমার দেবকে মুঠোফোনে অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষটি জানালে তিনি মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা সালেহ আহমদকে ফোন করে অতিরিক্ত ফি আদায়ের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাদরাসার বিভিন্ন প্রয়োজন থাকার কারণে তাদের কাছ থেকে বোর্ডের নির্ধারীত ফি চেয়ে কিছুটা বেশী নেয়া হচ্ছে। চেয়ারম্যন বললেন শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রশসংসাপত্রের অসম বাণিজ্য এট কাম্য নয়। তিনি বললেন আপনারা সব শিক্ষার্থীর দিক বিবেচনা করে ফি কমিয়ে তিনশ’ করে রাখেন। ৩০ জুন, সকালে শিক্ষার্থীরা একই বিষয়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শহীদ মোহাম্মদ ছাইদুল হকের অফিসে সরাসরি গিয়ে এ বিষয়ে অভিযোগ করলে তিনি মাদরাসার অধ্যক্ষকে ফোন করলে অধ্যক্ষ মাওলানা সালেহ আহমদ বিষটির ব্যখা করেন। তার ব্যখ্যা শুনে তিনি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে তিনশ’ টাকা নেয়ার নির্দেশ দেন।
সময়বার্তার পক্ষ থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে মুঠোফেনে যোগাযোগ করলে তারা এবিষয়টি নিশ্চিত করেন। এ ব্যপারে মাদরাসাার অধ্যক্ষ্যের সাথে মুঠেফোনে যোগাযোগ করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। উল্লেখ্য যে, প্রথমে যে সকল শিক্ষার্থীর কাছ থেকে পাঁচশ’ টাকা করে নেয়া হয়েছে তাদের দুইশ’ টাকা পরবর্তীতে আর ফেরত দেয়া হয়নি। আর এদিকে শিক্ষার্থীদের গুরুতর একটি অভিযোগ হলো, দাখিলের মার্কসীট এখনো মাদরাসা কর্তৃপক্ষ তাদেরকে দেননি। তারা না দেয়ার কারণ জানতে চাইলে উপজেলার বিভিন্ন মাদরাসার প্রিন্সিপালরা বলেন-মাদরাসায় এখনো পরীক্ষার মার্কসীট আসেনি, যার কারণে আমরা দিতে পারছি না। শিক্ষার্থীরা বলেন, মার্কসীট না পাওয়ার কারণে তারা কলেজে ভর্তি  হতে পরছেন না।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now