শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » এসো পান খাই, নিজেকে সতেজ রাখি!

এসো পান খাই, নিজেকে সতেজ রাখি!

pan। মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ ।। “পান” প্রকৃতপক্ষে পাহাড়ি একধরণের লতা জাতীয় উদ্ভিদের পাতার নাম। সমতলেও এর কয়েকটি প্রজাতির চাষাবাদ হয়ে থাকে। এই ‘পান’ খাওয়া নিয়ে অনেক কথা। যার আদি থাকলেও কোনো অন্ত্য নেই। পরিভাষায় ‘পান’  বলে কেবল পান নয়; এক কথায় সুপারী, চুনা, খয়ার, জর্দ্দা ইত্যাদিকেও বুঝানো হয়। মানে হলো, প্রথমে পানে চুনা ও খয়ার খষে এর ওপর জর্দ্দাসহ অন্যান্য মসলা পরিমাণমতো ঢেলে পর্যাপ্ত সুপারী দিয়ে পানে মোড়িয়ে যে সুখাদ্য তৈরি করা হয় একে পান বলা হয়। “পানখাওয়া” বললে, নিরেট সাদাসিধে পান ও সুপারী থেকে শুরু করে নানা স্বাদের ও ঘ্রাণের বারহারি সব জর্দ্দা-খয়ার সহকারে আভিজাত্যের সাথে পান চাবানোকেও শামিল রাখে। দুকানিরা তিন কিসিমের পান বানিয়ে বিক্রি করেন। (ক) কড়াপান। পরিবেশিত যে পনটিতে কড়া জাতীয় জর্দ্দা ইত্যাদি থাকে। (খ) মসলাপান। যে পানে নানা ধরনের গরমমসলা ইত্যাদি থাকে।(গ) মিষ্টিপান। যে পানটি মিষ্টি জাতীয় নানা আইটেম দিয়ে তৈরি করা হয়। তবে পরিপক্ক পানখোরেরা এর  রস খেয় নির্যাস ফেলে দিয়ে থাকেন।    আবার অনেকে সবটুকুই গলদকরণ করেন। সৌখিন লোকেরা সর্বপ্রকার মসলার সাথে খাবার সেন্ট এবং সুকন্ঠাও যোগ করে থাকেন। পানবিলাস নামের পাতাটির কথা তো রয়েই গেলো। সে এক ভিন্ন স্বাদের জিনিষ।  অনেক উপকারিও। তবে পান মূলতঃ যে পাতাটার নাম, সেটাও অনেক জাতের হয়ে থাকে। একজন খান্দানি পানখোর যখন দুকানে যেয়ে হাঁক ছোঁড়েন; এই!  বাংলাপান  দিয়ে একটা পান দাও তো! তখন তার চোখে- মুখে- দরাজ কণ্ঠে দেশপ্রেমের ছাপ ফুটে ওঠতেই পারে বৈকি? দুকানি বলবে, জনাব! আপনার পানে কী ? হবে। জবাবে,  কাঁচা-সুকনো, হাকিমপুরি-বত্রিশ, খয়ার-কালোজিরা ইত্যাদি ছন্দমালার সুমধুর সুর কার না ভালো লাগে?  কিছু কৃপণ লোক ছাড়া! পান নিজ হাতে তৈরিকরণের পর ভাঁজ করে মুখে পুরার ভাবই আলাদা। কোনো খাদেম বা স্ত্রীর হাতে প্রস্তুতকৃত পানে আবহের ভিন্নতা তো থাকবেই। মুখে পান পুরে শাহাদাত অঙ্গুলির অগ্রভাগে চুনা লাগিয়ে আপনি যখন হাটবেন, তখন এক দিগবিজয়ী বীরের আবেশ পরিদৃষ্ট হতেই পারে!  এতে কার কী আসে যায়? হাতের আঙ্গুল মুখে দিয়ে দাতের অগ্রভাগ দ্বারা চুনা খাওয়ার দৃশ্য দেখে শখে হউক বা জেদে অথবা লোভে কেউ আপনার দিকে তাকাতেই পারে! এটা তার অধিকার। হউকনা বাঁকা চোখে; এতে কিছু আসে যায় না। আগেকার যুগে রাজা-বাদশারা পান খেতেন শাহী সব মসল্লাযোগে। সিংহাসনে বসে। পাশে পিকদান নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতো দাস-দাসীরা। প্রাচীন কালে জমিদারেরা পান খেয়েছেন বৈঠকখানায়। এখনো গ্রাম্য সালিশে বা খুশগল্পের আসরে চা, পান উভয়টা সমানতালে চলে। বিশেষ করে নির্বাচনী ঝড়োহাওয়ায় চা ও পানের সম্মিলিত অভিযাত্রা মিডিয়াখ্যাত। গ্রাম- বাংলার মেয়েরা দাদি- নানির কাছে সুপারি কাটার রকমফের তালিম নিতেন। এসব দাদিগণের মাঝে যাঁদের দন্তমোবারক নেই; তাদের রয়েছে যাদুঘরে রাখার মতো পান-সুপারী গুড়ো করার বিস্ময়কর অস্ত্র। বাঁশের কৌটা ও বিশেষ কায়দায় তৈরিকৃত লোহার রড। এসকল দাদিই বলতে পারেন পানের প্রকৃত স্বাদ ও ফজিলতের খবর। দাদিগণের সুপারী গুড়োর কৌটা নিয়ে নাতি-নাতনিদের কাড়াকাড়ির দৃশ্য দেখলে সহজেই অনুমান করা যায় পানের আসল কদর। উৎসব- পার্বণে পানসুপারির বিশেষত্বের কথা আর বলার অবকাশ রাখেনা। তখন গ্রামের অভিজ্ঞ সুপারিকাটুয়া মেয়েদের শিডিউল পেতে অনেক বেগ পোহাতে হয়। বিবাহপূর্ব       ” চিনি- পান” অনুষ্ঠানের রেওয়াজ কি বলে? আজো বাংলার আনাচে কানাচে আতিথেয়তার উপসংহার পানের দ্বারাই টানা হয়। এক খিলি পানের কদর লিখে বোঝাবার নয়। এদেশের অভিজাত এলাকা বিশেষতঃ সিলেট, চট্রগ্রাম ও পুরান ঢাকার লোকেরা পানখাওয়া পছন্দ করে। ঐতিহ্যগতভাবে ভারত, পাকিস্তান ও বাংলার আকাবের ওলামা-মাশায়েখ বহু শতক আগে থেকে পান খেয়ে আসছেন। যা হালআমলের সম্মানিত আলেমসমাজও জিইয়ে রেখেছেন। পীর সাহেবদের খাওয়া পানের সার ও ফেলা পিক নিয়ে মুরিদানের কাড়াকাড়ির ঘটনামালা সাংবাদিকদের আকৃষ্ট করেছে বহুবার। মনে রাখবেন! পানে মিশে  আছে শক্তি। পানে নিহিত আছে সুস্থতা। পানে ছড়িয়ে আছে বীরত্ব ও বাহাদুরির কিরণ। পানের সাথে রয়ছে আমাদের ঐতিহ্যের সেতুবন্ধন। সংস্কৃতির অটুট স্মৃতিপথের মোহনা। ইতিহাসবেত্তাগণ পানের গৌরবময় ইতিকথা লিখেছেন। গল্পকার ও ঔপন্যাসিকেরা রূপকাহিনী বা কল্পকথায় রঙছড়িয়েছেন এই পানের দ্বারাই। কতো গীতিকার গান বেঁধেছেন এই পান নিয়ে।  কবিদের কবিতা অমরত্ব পেয়েছে পানের রঙে ও গুণে। পানখেকো প্রেয়সীর লাল অধরের চিত্রায়নে। কোনো কবি বলেন, “পানকাহানা সুরখ কারনা লবহিলানা চাহিয়ে/ নায কারকে আশেকৌকা মন ভুলানা চাহিয়ে”। এই পানের গুণগত মান বৈশ্বিক ও আন্তর্জাতিক। পান বহুদেশীয় ও বহুজাতীয় ভ্রাতৃত্বের প্রতীক। পানসুপারির মর্যাদায় ধরনীর কোনো ধর্মই আঘাত করেনি। পান সকল ধর্মে অনুমোদিত ও বরণীয়। বিখ্যাতসব সুপারী সিংগাপুরের। সর্বাধিক পুষ্টিকর পান খাসিয়া জৈন্তার। উৎকৃষ্টমাণের উপাদেয় চুনা বাংলাদেশী ঝিনুকের। নানা স্বাদের তামাক আফগানিস্তানের। বিখ্যাতসব মসল্লা ভারতের।     আমার এক বন্ধু প্রশ্ন রেখেছেন, পান খেয়ে লাভ কি? আরেক ভাই বলেছেন, পান খাওয়া ক্ষতিকর! আরেক বিশেষজ্ঞ বললেন, পান খাওয়া নেশাকর। এভাবে পান নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা বা প্রশ্নপর্বের শেষ নেই। আসলেই কি তাই? নিজে যেহেতু একজন খ্যাতিমান পানখোর, সুতরাং এ সম্পর্কে কিছু লিখতেই হয়। কেনোনা, পনেরো বছর থেকে হালাল- হারামের ফতোয়া দিচ্ছি; অতএব, উপকারিতা না থাকলে পান খাওয়া বাদই দেবো। অসুবিধে কোথায়? আর যদি পানে অপকারিতা না থাকে তাহলে আবারো বলছি, আসুন! নিজে পান খাই এবং অন্যকে পান খেতে উৎসাহী করে তুলি। অন্য ভাষায় বলা যায়, পান খান শরীরকে সুস্থ রাখুন। জীবনকে উপভোগ করুন। এবার আসি মূল বিষয়ে। উদ্ভিদবিজ্ঞানীরা বলেছেন, পান প্রধানত দু’ প্রকার। (ক) মিষ্টিপান। (খ) ঝাঁঝপান। তবে আমাদের সমাজে এসব পানের প্রজাতি ভিন্ন ভিন্ন। উভয় ধরনের পানের বেশ কিছু নামও আছে। যেমন, বাংলাপান, খাসিয়াপান, সিঞ্চিপান, বারইপান ইত্যাদি। চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের মতে এসব পানে উষ্ণবীর্য, লঘু, বলকারক, কামোদ্দীপক, রাতকানা রোগ নিবারক শক্তি রয়েছে।
সুপারীর মাঝে আছে, গুরু, শীতবীর্য,
সুপারীর মাঝে আছে, গুরু, শীতবীর্য, রুক্ষ, কফঘ্ন, পিত্তনাশক, অগ্নিপ্রদীপক, রুচিকর ও মুখের বিরসতানাশক শক্তি। আর কাচা বা পঁচা সুপারিতে আছে, কৃমিনাশক শক্তি। চুনার মাঝে আছে, ক্যালসিয়াম, পাকস্তলির পরিপাকশক্তিবর্ধক, যৌনউদ্দীপক, রক্ত পরিষ্কার কারক শক্তি; যদি এটা ঝিনুকের চুনা হয়। আর পাথুরে চুনার মাঝে রক্তপরিষ্কারকের পাশাপাশি পরিপাকক্ষমতা হ্রাসক শক্তিও আছে। সুতরাং ঝিনুকের চুনাই শ্রেয় বলে বিবেচিত হয়। যা পাকস্থলির জন্য খুবই উপকারি। তা ছাড়া চুনার সাথে খাওয়া হয় খয়ার। খয়ারে আছে পাণ্ডুনাশক, রক্তবর্ধক ও পরিস্কারক আয়রণ জাতীয় শক্তি। যা আমাদের খুবই প্রয়োজন। আরো খাওয়া হয় জর্দ্দা। এটা তামাকের সাথে বেশ কিছু শক্তিশালী ও স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী পদার্থ- দ্রব্যাদি মিশিয়ে আমরা তৈরি করে নেই। তামাক নিজস্ব ফর্মুলায় প্রক্রিয়াজাতকরণের পর তাতে আর তামাকের ক্ষতিকারক শক্তি তেমন একটা বলবান থাকেনা। যেমন, লবঙ্গ : এতে আছে, চক্ষুর হিতকর, অগ্নিদীপক, রুচিকারক এবং কফ, পিত্তদোষ, রক্তদোষ, তৃষ্ণা, বমি, উদরাধ্নান, শূল, কাশ, শ্বাস, হিক্কা, ক্ষয়রোগ আশু নিবারক শক্তি।
বড় ও ছোট এলাচী: যাতে আছে, অগ্নিবর্ধক, লঘু, রুক্ষ ও উষ্ণবীর্য। এটা কফ, পিত্তদোষ, রক্তদোষ, শ্বাস, তৃষ্ণা, মূত্রাশয়গত রোগ, মুখরোগ, শিররোগ, বমি ও বায়ূনাশক শক্তি রাখে। দারুচিনি ও তেজপাতা: এ দু’টিতে আছে, পিত্তনাশক, বলকারক, শুক্রবর্ধক, তৃষ্ণা নিবারক, উষ্ণবীর্য, লঘু ইত্যাদি যা কফ, বায়ূ ও অর্শরোগ বিনাশক।
ধনিয়া: যাতে আছে, স্নিগ্ধ, মুত্রজনক, লঘু, হজমশক্তি বৃদ্ধিকারক, রুচিকর, ত্রিদোষনাশক, জ্বর, তৃষ্ণা, দাহ, বমি, শ্বাস, কাশ ও কৃমিনাশক শক্তি। কালোজিরা: এসম্পর্কে হযরত নবী করীম (সা) হদীস শরীফে বলেছেন, কালোজিরা মৃত্যু ব্যতিরেকে সকল রোগের নিরাময়কারি ওষুধ। বিজ্ঞানীদের গবেষণামতে তাতে আছে, চক্ষুর হিতকর, রুচিজনক, উষ্ণবীর্য, মলসংগ্রাহক, হজমকারী শক্তি বৃদ্ধিকারক, বলকর, গর্ভাশয়বিশোধক শক্তি; যা জীর্ণজ্বর, শোথ, শিররোগ, কুষ্ঠরোগ, গুল্ম, প্লীহা, ক্রিমি, আমাশা নিবারক ইত্যাদি।
আবার কখনো আমরা পান- সুপারির সাথে পুদিনাপাতা, নারিকেল, গাজর, আদা ইত্যাদি খেয়ে থাকি। এগুলো অনেক অনেক উপকারী বিধায় ওইসবের ভিড় ঠেলে একাকী তামাক বেচারা কোনো ক্ষতি করতে পারেনা। বাজারি জর্দ্দাগুলো এতো যত্নের সাথে তৈরিকৃত নাহলেও অন্যান্য মসল্লাদির সঙ্গে সামান্য কালোজিরা খেয়ে নিলে এটাও কালোজিরার বরকতে পাওয়ারলেস হতে বাধ্য। আবার ঐতিহাসিক বিবরণমতে ভারতীয় জনৈক ব্যাক্তি কর্তৃক পান- সুপারি- চুনা ইত্যাদি নবী (আ) কে হাদিয়া প্রদান ও গ্রহণের কথা যদি সত্য হয়; তাহলে তো এটা সুন্নত হতে পারে।
সর্বোপরি ইসলামী জ্ঞানমতে নানা দেশের নানা দ্রব্য একীভূত করে খাওয়ার এ অভিনব প্রক্রিয়া সর্বপ্রথম মহান আল্লাহই তার প্রিয় বান্দা ও নবী হযরত আদম (আ)কে শিক্ষা দেন এবং তা আজ দুনিয়াজুড়া খ্যাতি লাভকরে।

((আজ এ পর্যন্ত: সালামান্তে
মুফতী খন্দকার হারুনুর    রশীদ,
০১৭১৪৭৩১৭৩১।))

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now