শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » লন্ডনে ওয়ার্ক পারমিট ব্যবসার নামে বাঙ্গালী ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ২শ হাজার পাউন্ড হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

লন্ডনে ওয়ার্ক পারমিট ব্যবসার নামে বাঙ্গালী ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ২শ হাজার পাউন্ড হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

a.kadirবিশেষ প্রতিনিধি: লন্ডনে ওয়ার্ক পারমিট ব্যবসার নামে অন্তত ২শ হাজার পাউন্ড হাতিয়ে নেওযার অভিযোগ উঠেছে এক বাংগালী এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ।   ওয়ার্কপারমিট বিক্রি করে হাতিয়ে নেয়া এসকল টাকা বৃহস্পতিবার ফেরত দেয়ার কথা থাকলে ভোক্তভোগিরা এসে জনৈক ব্যবসায়ী আব্দুল কাদিরের অফিসে  ভীড় জমান । পরে পুলিশের সহযোগিতায় তিনি আত্মরক্ষা করেন বলে জানা যায় ।
জানাগেছে,
পূর্ব লন্ডনের গ্রেটারেক্স স্ট্রিটে অনুষ্ঠিত লন্ডন প্রপার্টি এন্ড ফাইনান্স নামে পরিচালিত এই প্রতিষ্ঠান থেকে গত বছর ১৬ টি ওয়ার্কপারমিট বের করা হয় ।এই প্রতিষ্ঠানটির ডাইরেক্টর আব্দুল কাদির  একজন অসাধু ব্যবসায়ী হিসেবে আগে থেকেই লন্ডনে পরিচিত ।  তিনি লন্ডন প্রপার্টি এন্ড ফাইনান্স থেকে ওয়ার্ক পারমিট বের করলেও ব্যবসা করতেন আল পাইন সাইনবোর্ড ব্যবহার করে ।এই নামে  মর্গেজ ব্যবসাকে তিনি ফোকাস করতেন কিন্তু  আড়ালে ছিল ওয়য়ার্ক পারমিট ব্যবসা । গত বছর বাংলাদেশি স্টুডেন্ট সহ ইন্ডিয়ান ও শ্রিলংকান স্টুডেন্টদের কাছে এসকল ওয়ার্ক পারমিট বিক্রি করেন তিনি । প্রতিটি পারমিট তিনি ১৬ হাজার পাউন্ড করে বিক্রি করেছেন বলে জানা যায় । সম্প্রতি আব্দুল কাদিরের ওয়ার্ক পারমিটধারী প্রতিষ্ঠানটির লাইসেন্স বাতিল হয়ে যায়  ।  হোম অফিস লোকজন অফিস ভিজিট করলে ১৬ জন পারমিট হোল্ডারের একজনকেও কাজে পাইনি বিধায় তার লাইসেন্স টি বাতিল করে হোম অফিস । বৃহসপতিবার ভুক্তভোগি  পারমিট হোল্ডারা আব্দুল কাদিরের অফিসে এসে টাকা ফেরত চাই ।  কিন্তু আব্দুল কাদির তাদের টাকা ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানায় এবং নিজেকে সেইভ করার জন্য পুলিশ কল করেন । পুলিশ  ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে এবং বিষয়টি আইনি পক্রিয়ায় দেখা হবে বলে ভুক্তভোগীদের শান্তনা দেয়   । জানা যায় বাংলাদেশিদের মধ্যে যারা ওয়ার্ক পারমিট নেন তারা হচ্ছেন সৈয়দা শরিফা হায়দার , আব্দুল্লাহ আল মামুন , সোহেল, সাঈদ ইকবাল , রবিউল ইসলাম ।  এছাড়ার শ্রিলংকান এবং ইন্ডিয়ান স্টুডেন্ডদের  নাম জানা  যায়নি । এদের প্রত্যেকে ১৬ হাজার পাউন্ড করে দিয়েছেন আব্দুল কাদিরকে । এছারা প্রতি পারমিট হোলডারের কাছ থেকে কাদির প্রত্যেক মাসে ৪শ থেকে ৫ শ পাউন্ড করে নিয়েছেন ট্যাক্স দেয়ার কথা বলে । অথচ তিনি কোন পারমিট হোল্ডারের ট্যাক্স পরিশোধ করেননি । প্রতিটা পারমিট ৩ থেকে ৫ বছরের মেয়াদী ছিল , অথচ ১ বছরের মাথায় তার লাইসেন্স বাতিল হয়ে যাওয়ায় এসকল পারমিট হোল্ডাররা বিপাকে পরেন । তারা ৬০ দিনের মধ্যে  সেইম রিলেটেড অন্য কোন প্রতিষ্ঠান থেকে পারমিট নিতে না পারলে ভিসা থাকবে না । এক্ষেত্রে তাদেরকে অভারস্ট্রেহতে হবে ।  জানা গেছে এর আগেও কাদির এ রকম ওয়য়ার্ক পারমিট ব্যবসা করে অনেক স্টুডেন্টের জীবন নষ্ট করেছেন । ওয়াক পারমিট বিক্রি নিজের ইচ্ছায় অনেক সময় কোম্পানি বন্ধ করে দিতেন । এক্ষেত্রে পারমিট হোল্ডাররা বিপাকে পরতেন ।  অনেককেই ওভারস্ট্রে হতে হয়েছে ।
সুত্র: ও,ফে/ইন,২৪.৮.১৫

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now