শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » ছাত্রদলে বিদ্রোহের অবসান! আলোচনায় ভিপি মাহবুব

ছাত্রদলে বিদ্রোহের অবসান! আলোচনায় ভিপি মাহবুব

সিলেট রিপোর্ট: সিলেটে সাম্প্রতিক সময়ে ছাত্রদলের বিদ্রোহের ঘটনায় আলোচনার র্শীষে রয়েছেন যিনি তিনি হলেন সিটিমেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর গনিষ্টজনবলে পরিচিত ভিপি মাহবুবুল হক চৌধুরী।  নবগঠিত সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে তিনিই ছিলেন মুলচালিকা শক্তি! তাই তাকে যেকোন্উপায়ে ক্ষ্যন্তকরতে কেন্দ্রীয়ভাবে বলাহয়েছে বলে একাদিক সুত্র নিশ্চিত করেছে। দলের বৃহত স্বাথে বিদ্রোহ থেকে অবশেষে ক্ষান্ত দিলেন সদ্য সাবেক জেলা ছাত্রদল সাংগঠনিক সম্পাদক ভিপি মাহবুবুল হক চৌধুরী। (গত রাত )বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে নগরীর শাহজালাল উপশহরের বি ব্লকের (সড়ক নং-১৪) ৩৭ নম্বর ‘শুগন্ধা’ বাসায়। ওই বাসাটি স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিন ও সৈয়দ মঈন উদ্দিন সোহেল’র।মঈনুদ্দিন সোহেল সম্পর্কে মাহবুবুল হকের আপন ভায়রা। ছাত্রদলের বিদ্রোহী নেতা ও পুলিশ সূত্র জানায়, রাত ১২টার দিকে একই গাড়ীতে করে ওই বাসায় আসেন সিলেট-১ আসনের সাবেক সাংসদ প্রয়াত খন্দকার আবদুল মালেকের ছেলে খন্দকার আবদুল মুক্তাদির এবং ছাত্রদলের বিদ্রোহী নেতা, জেলা কমিটির সদ্য সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল হক চৌধুরী। এসময় সিলেট

শহর যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মঈন উদ্দিন সোহেলও উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে ফলপ্রসূ আলোচনার মাধ্যমে প্রাপ্য মূল্যায়নের নিশ্চিত আশ্বাস পেয়ে ভিপি মাহবুব বিদ্রোহীদের কাতার থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করতে রাজি হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র।একজন বিদ্রোহী নেতার সাথে খন্দকার মুক্তাদিরের গোপন বৈঠকে সমঝোতার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক বিদ্রোহী বলয়ের নেতাকর্মীরা মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সমাজসেবা সম্পাদক রেজাউল করিম নাচনের নেতৃত্বে বাসাটি ঘেরাও করে অবরুদ্ধ করে রাখে বৈঠকে উপস্থিত তিন নেতাকে। এদিকে বিদ্রোহীরা খন্দকার মুক্তাদিরকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে এমন খবর নবগঠিত কমিটির নেতৃবৃন্দের কাছে পৌছালে পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মী জড় হয় মঈনুদ্দিন সোহেলের বাসার চারপাশে। নতুন কমিটির নেতাকর্মীদের সংগঠিত শক্তির কাছে অসহায় হয়ে কোন প্রকার উপস্থিতির জানান না দিয়েই এলাকা ছেড়ে চলে যান বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা। সংঘর্ষ হতে পারে এমন আশংকায় পুলিশও অবস্থান নেয় সোহেলের বাসার সামনে। একপর্যায়ে বিপুল সংখ্যক ছাত্রদল নেতাদের উপস্থিতিতে রাত ১টারদিকে বাসা থেকে প্রাইভেট কার নিয়ে বেরিয়ে যান খন্দকার আবদুল মুক্তাদির এবং ছাত্রদলের বিদ্রোহী নেতা, জেলা ছাত্রদলের সদ্য সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল হক চৌধুরী।
এব্যাপারে রাত সোয়া ১টায় ঘটনাস্থলে থাকা উপ শহর পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ সুদিপ্ত রায় উপস্থিত লোকজনের বরাত দিয়ে বলেন, বাসা থেকে বেরিয়ে যাওয়াদের মধ্যে খন্দকার মুক্তাদিরও ছিলেন।
এ ব্যাপারে জানতে জেলা ছাত্রদলের সদ্য সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল হক চৌধুরীর সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্ঠা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। খন্দকার আবদুল মুক্তাদিরেরও মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।তবে কমিটির শীর্ষ এক নেতা ভিপি মাহবুবুল হক চৌধুরীর সংগে সমঝোতার বিষয়টি স্বীকার করলেও বৈঠকে খন্দকার মুক্তাদিরের উপস্থিতির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেছেন, যেহেতু ভিপি মাহবুবুল হক চৌধুরীর সংগে আমাদের সমঝোতা হয়েছে তাই বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে মূলত তাকে উদ্ধার করতেই কমিটির নেতৃবৃন্দ উপশহরের ঐ বাসায় অবস্থান নেয় “।
অনেকেই মনেকরছেন, বিদ্রোহীদের শীষ নেতা ভিপি মাহবুব এর সাথে  সমঝোতায় পৌছাতে পারায় সিলেটে ছাত্রদলের কমিটি সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now