শীর্ষ শিরোনাম
Home » মিডিয়া » সাহিত্যের বংশী বাদক আমাদের কবি মুসা আল হাফিজ

সাহিত্যের বংশী বাদক আমাদের কবি মুসা আল হাফিজ

musaমুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : বিশিষ্ট লেখক, কবি গবেষক ও কথাশিল্পী হাফিজ মাওলানা কবি মুসা আল হাফিজ আমাদের চেতনা জাগ্রত করার ক্ষেত্রে এক সাহসী কলম সৈনিক।  পশ্চিমা সভ্যতার মুখোশ উন্মোচনকারী মুসা আল হাফিজ সাহিত্য সংস্কৃতি ও মননশীলতায় এক উজ্জল নাম। মূলত তিনি কবি হলেও একজন বিদগ্ধ আলিম, গবেষক, বাগ্মী ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবে খ্যাতিমান। ১৯৮৪ সালে কবির জন্ম। সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের আমতৈল-মাখরগাঁও গ্রামে এক দ্বীনদার পরিবারে তার জন্ম্ । পিতা আলহাজ্ব হাফেজ ইবরাহীম আলী, মাতা আলহাজ্ব জুবেদা খাতুন। তার নানা ছিলেন কাদরিয়া তরিকার বিখ্যাত বযুর্গ আলহাজ্ব আজিজুর রহমান রহ.। পারিবারিক পরিবেশে বাল্যকালে কবির লেখাপড়া শুরু। পিতার তত্ত্বধানে ১১ বছর বয়সে স্থানীয় আমতৈল দারুস সুন্নাহ মাদ্রাসা থেকে  হিফজুল কুরআন সম্পন্ন করেন। ২০০৭ সালে জামিয়া ইসরামিয়া উমেদ নগর হকিগহ্জ থেকে অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে দাওরায়ে হাদীস সম্পন্ন করেন। ২০০৮ সালে তাফসীরুল কুরআনে বিশেজ্ঞ কোর্স সমাপ্ত করেন। কর্মজীবনে জামিয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথে শিক্ষকতা শুরু করেন। ধর্ম ও দর্শন বিষয়ক মাসিক আল ফারুকের উপদেষ্টা সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি উচ্চতর ইসলামী শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘জামেয়াতুল খাইর আল ইসলামিয়া সিলেট-এ অধ্যাপনা করছেন।
আধ্যাত্মিকতার ক্ষেত্রে শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীর নিকট থেকে (২০১০ সালে)  ইযাযত প্রাপ্তহন।
কৈশোর থেকেই তিনি সাহিত্য চর্চায় মনোযোগী। ১৩ বছর বয়সে তার প্রথম রচনা প্রকাশিত হয়। তা ছিল একটি ছোট গল্প। ১৬ বছর বয়সে গোলাপ কুঁড়ি পাবলিকেশন্স ঢাকা থেকে ‘মুক্তি আনন্দে আমিও হাসব’ নামে তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। সে সময় থেকে স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের পত্রিকা-জার্নালে তার লেখা নিয়মিত প্রকাশিত হতে থাকে। ২০০২ সালে লেখা কবির ‘মাদক মায়াবী মরণাস্ত্র’ গ্রন্থটি তরুণদের মধ্যে মাদকবিরোধী সচেতনা সৃষ্টির জন্য এনজিও সংস্থা কর্তৃক দেশব্যাপী বিনা মূল্যে বিতরণ করা হয়। ২০০৪ সালে প্রকাশিত হয় কবির ছড়াগ্রন্থ ‘সৃজনে রক্ত চাই’। ২০০৬ সালে ঢাকার ইম্পেক্ট পাবলিকেশন্স থেকে প্রকাশিত হয় গবেষণাগ্রন্থ ‘আমি বিজয়ের সন্তান’। ২০০৯ সালে প্রকাশিত হয় ‘সভ্যতার সংঘাত ও মুসলিম বিশ্বের যাত্রাপথ’। ২০১০ সালে প্রকাশিত হয় অনুবাদ গ্রন্থ ‘তৃতীয় সহ¯্রাব্দের কিয়ামত’। ২০১২ সালে প্রকাশিত হয় তার সাড়া জাগানো কাব্যগ্রন্থ ‘ঈভের হ্রদের মাছ।’ ২০১৩ সালে প্রকাশিত হয় অনুবাদ গ্রন্থ ‘যে সূর্যে প্রদীপ্ত বিশ্ব’। ২০১৪ এর বই মেলায় মহাকবি আব্দুর রহমান জামির জীবন ও কবিতা নিয়ে গবেষণাগ্রন্থ ‘মহাকাব্যের কোকিল’ প্রকাশিত হয়। ২০১৫ সালের বই মেলায় প্রকাশিত হয় মহাসাধক মনসুর হাল্লাজের সুফি তত্ত্ব দর্শন ও কবিতা নিয়ে রচিত ‘মরমী মহারাজ’ বাংলা একাডেমী বই মেলায় যাকে বছরের সেরা গ্রন্থ হিসেবে ঘোষণা করেন কবি আসাদ চৌধুরী। সর্বশেষ ১৫ জুন ২০১৫ প্রকাশিত হয় –প্রাচ্যবিদদের দাঁতের দাগ। সাহিত্য চর্চার স্বীকৃতি হিসেবে তিনি অর্জন করেছেন আর রাহমান চ্যারিটি ফাউন্ডেশন পুরস্কার (ইউ.এস.এ), আল আমানাহ সাহিত্য পুরস্কার, মাসিক আদর্শ নারী লেখক সম্মাননা, ড. মমিনুল হক সাহিত্য পুরস্কার ইউ.কে।  ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত। এক সন্তানের জনক।

এদিকে,সাহিত্যে বিশেষ অবদানের সম্মানে গ্রেটার সিলেট ডেভেলপমেন্ট এন্ড ওয়েলফেয়ার কাউন্সিল এর বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের পক্ষ থেকে ১০ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now